প্রিয় বরিশাল - খবর এখন স্মার্ট ফোনে প্রিয় বরিশাল - খবর এখন স্মার্ট ফোনে শেখ হাসিনা কারো উপর নির্ভরশীল নন | প্রিয় বরিশাল শেখ হাসিনা কারো উপর নির্ভরশীল নন | প্রিয় বরিশাল
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন
প্রিয় বরিশাল :
খবর এখন স্মার্ট ফোনে...

শেখ হাসিনা কারো উপর নির্ভরশীল নন

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২১

একটি সরকার দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকলে, সরকারের ভেতর কিছু ক্ষমতাবান মানুষ তৈরি হয়। এদের কারণে ক্ষমতাসীন সরকার এবং সরকার প্রধান নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হন। আর, দীর্ঘদিন পাশে থাকার কারণে সরকার প্রধানরাও এদের উপর নির্ভরশীল হন। তাদের নানারকম বিচ্যুতি এবং ক্ষমতার অপব্যবহার উপেক্ষা করেন। এর সবচেয়ে ভালো উদাহরণ পশ্চিমবঙ্গে জ্যোতি বসুর বামফ্রন্ট সরকার। ১৯৭৭ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত টানা মোট ২৩ বছর পশ্চিম বাংলার মূখ্যমন্ত্রী ছিলেন এই কিংবদন্তী তুল্য রাজনীতিবীদ। এই ২৩ বছরে তার একান্ত সচিব বিমল মৈত্র, সহকারী একান্ত সচিব সুব্রত ব্যানার্জী দল এবং মন্ত্রীর চেয়েও ক্ষমতাবান হয়ে উঠেছিলেন। ‘পশ্চিম বাংলায় বামফ্রন্টের বিপর্যয়’ শিরোনামে সিপিএমের আত্ম সমালোচনা মূলক দলিলে উঠে এসেছে, এই সব ব্যক্তিগত স্টাফরা কিভাবে বামফ্রন্টের ইমেজ নষ্ট করেছিলেন।

কিভাবে জনগণের সঙ্গে সরকারের দূরত্ব তৈরি করেছিল। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও টানা একযুগ ক্ষমতায়। এই এক যুগ ক্ষমতায় অন্যান্য কিছু ব্যতিক্রমী বৈশিষ্ট্যের মধ্যে একটি হলো, কোন ব্যক্তিগত স্টাফের উপর নির্ভরশীল এবং অভ্যস্ত না হয়ে ওঠা। তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ব্যক্তিগত স্টাফ নিয়মিত পরিবর্তন করছেন। তাদের উপর নির্ভরশীল হয়ে উঠছেন না। বরং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মেধাবী কর্মকর্তাদের সমাবেশ ঘটাচ্ছেন। একারণেই কোন কর্মকর্তা ক্ষমতাবান, দানব হয়ে উঠতে পারছেন না। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত স্টাফ একজন সহকারী কর্মকর্তা মাত্র-এই বোধ তিনি প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তাই, কেউ ‘অসীম ক্ষমতাবান’ হতে পারেন নাই। যখনই যাকে ‘ক্ষমতাবান’ বলে আলোচনা হয়েছে। টুকটাক কথা বার্তা হয়েছে তখনই তাকে অন্যত্র বদলী করা হয়েছে, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায়। এর ফলে; প্রথমত: ব্যক্তিগত কর্মকর্তার ক্ষমতা দাপটে সরকারের বদনাম হয়নি। দ্বিতীয়ত: নতুন ব্যক্তি চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করেছেন। ভালো কাজের অনুপ্রেরণা অনুভব করেছেন। এই রীতি চালু করা অত্যন্ত কঠিন। কারণ, ব্যক্তিগত স্টাফরা একধরনের অভ্যস্ততা। তারা প্রধানমন্ত্রীর মেজাজ মর্জি বোঝেন। প্রধানমন্ত্রীর ভালোমন্দ জানেন। চট করে একজন নতুন স্টাফ আনাটা তাই অনেক দেশের সরকার প্রধানরা ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেন। এমনকি বাংলাদেশেই মহামান্য রাষ্ট্রপতি তার সচিবকে বদলাতে আড়ষ্ট। অথচ প্রধানমন্ত্রী অবলীলায় তার ব্যক্তিগত স্টাফ পরিবর্তন করেন। কারণ একটাই, প্রধানমন্ত্রী কারো উপর নির্ভরশীল নন। আর নিজের কাজটা এখনও তিনি নিজেই করেন।

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © priyobarishal.com-2018-2021
themesba-lates1749691102