প্রিয় বরিশাল - খবর এখন স্মার্ট ফোনে প্রিয় বরিশাল - খবর এখন স্মার্ট ফোনে ঋণের চাপে শারীরিক প্রতিবন্ধী আত্মহত্যা | প্রিয় বরিশাল ঋণের চাপে শারীরিক প্রতিবন্ধী আত্মহত্যা | প্রিয় বরিশাল
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৭:৪০ অপরাহ্ন
প্রিয় বরিশাল :
খবর এখন স্মার্ট ফোনে...

ঋণের চাপে শারীরিক প্রতিবন্ধী আত্মহত্যা

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিতঃ রবিবার, ২ মে, ২০২১
0 Shares

প্রিয় ডেস্ক ॥ গাজীপুরের শ্রীপুরে এনজিওর ঋণের চাপে রুবেল মিয়া (৩৫) নামে শারীরিক প্রতিবন্ধী এক যুবক বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

 

শনিবার (০১ মে) দুপুরে উপজেলার ডোমবাড়িচালা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রুবেল মিয়া ডোমবাড়িচালা গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে।

সংসারে আরাফাত, শাহাদাত ও রুমেলা নামে তিন সন্তান আছে। প্রতিবন্ধী স্বামীকে নিয়ে বাড়ির আঙিনায় সবজি চাষ করেছি। চাষে টাকার সংকট পড়ায় পিদিম ফাউন্ডেশন জামিরদিয়া মাস্টারবাড়ি শাখা থেকে পাঁচ মাস মেয়াদি ২০ হাজার টাকা ঋণ নিই।

১০ মার্চ মেয়াদ শেষ হলেও ঋণ পরিশোধ করতে পারিনি। পুরো টাকা বিনিয়োগ করেছিলাম সবজিচাষে।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) পিদিম ফাউন্ডেশনের মাঠকর্মী নাঈম বাড়িতে এসে ঋণের টাকার জন্য চাপ দেন। শনিবার (০১ মে) ঋণের টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিলে নাঈম চলে যান।

 

সেলিনা আক্তার আরও বলেন, শনিবার পর্যন্ত কোনো টাকা জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। মাঠকর্মী টাকার জন্য এলে তাকে কিছুক্ষণ পর আসতে বলেন রুবেল।

বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেও টাকা সংগ্রহ করতে না পেরে দুপুরে কীটনাশক পান করেন রুবেল। তাকে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই।

সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান রুবেল।

তেলিহাটি ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য তারেক হাসান বাচ্চু বলেন, পারিবারিক নানা ঝামেলা ও ঋণের টাকা জোগাড় করতে না পেরে রুবেলের বিষণ্নতা তৈরি হয়।

হতাশা থেকেই আত্মহত্যা করেছেন তিনি। তবে লকডাউনের মধ্যে ঋণের টাকা আদায় বন্ধ রাখা উচিত ছিল।

জামিরদিয়া মাস্টারবাড়ি শাখার পিদিম ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপক রাশেদুল আলম বলেন, রুবেল মিয়া ও সেলিনা আক্তার আমাদের সমিতির ৭৫৬৪ নম্বর সদস্য।

গত ১২ নভেম্বর সুফলন ঋণের আওতায় পাঁচ মাস মেয়াদি দুই হাজার টাকা সুদে ২০ হাজার টাকা ঋণ নেন তারা। ১০ এপ্রিল ঋণ পরিশোধের সময় উত্তীর্ণ হয়।

রাশেদুল আলম আরও বলেন, ঋণের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ায় বুধবার মাঠকর্মী তার বাড়িতে গিয়েছিল টাকা আদায়ের জন্য। শনিবার টাকা দেওয়ার কথা ছিল।

পরে আমরা জানতে পারি রুবেল আত্মহত্যা করেছে। বিষয়টি দুঃখজনক। তবে তাকে ঋণের টাকা ফেরতের জন্য চাপ দিইনি আমরা।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. জিন্নাহ বলেন, রুবেল প্রতিবন্ধী ছিলেন। ঋণ ও পারিবারিক বিভিন্ন কারণে বিষণ্নতায় ভুগছিলেন।

এনজিও ও বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিলেন তিনি। এসব কারণে আত্মহত্যা করেছেন বলে পরিবার জানিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

এই ক্যাটাগরির আর নিউজ
© All rights reserved © priyobarishal.com-2018-2021
themesba-lates1749691102